25/09/2022
যে নারীকে বিবাহ করা উচিত নয়

যে ৬ প্রকার নারীকে বিবাহ করা উচিত নয়।

যে নারীকে বিবাহ করা উচিত নয়। ছয় প্রকার নারীকে বিবাহ করা উচিত নয়: 


বিবাহ মানবজীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ। একজন পুরুষ ও একজন নারীর মাঝে ইসলাম নির্দেশিত বৈধ উপায়ে সম্পর্কের মধ্য দিয়ে বংশ বৃদ্ধির বৈবাহিক সভ্যতা গড়ে ওঠে মুসলমানের।  বিবাহ আমাদের জীবনের গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ, বিবাহ পরবর্তী যেই নারী আমাদের জীবনসঙ্গিনী হিসেবে আসে, তার চরিত্র এবং আখলাক সুন্দর না হলে, আমাদের জীবনে নেমে আসে এক অশান্তির‌ বিশৃঙ্খল!। তাই কাউকে জীবনসঙ্গিনী করার আগে ভালোভাবে তার সম্বন্ধে জানে নিতে হবে। নিম্নে ছয় প্রকার নারীর কথা উল্লেখ করে দেওয়া হল, যাদেরকে জীবনসঙ্গিনী করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

১. আন্নানা

২. মান্নানা

৩. হান্নানা

৪. হাদ্দাকা

৫. বাররাকা

৬. শাদ্দাকা

  • ১. “আন্নানা” হলো সেই নারী যে সবসময়- 

হায় আফসোস’ ‘হায় আফসোস’ করতেই থাকে। কোন কিছুতে শুকরিয়া নেই, আল্লাহর সিদ্ধান্তের উপর তারা রাজি খুশি থাকেন। এবং অলস, ‘রোগিণী’র ভান করে বসে থাকে। এমন নারীকে বিয়ে করলে সংসারে বরকত হয় না। শান্তির পরিবর্তে বিশৃঙ্খলা দেখা দেয়।

  • ২. “মান্নানা” হলো সেই নারী যে স্বামীকে প্রায়ই সময় বলে, আমি তোমার জন্যে এইটা করেছি, সেইটা করেছি। হেন করেছি, তেন করেছি,  ইত্যাদি ইত্যাদি।

অর্থাৎ স্বামীকে খোটা দেয়, এমন সংসারে নৈরাজ্য সৃষ্টি হয়, প্রেম ভালবাসার পরিবর্তে ঘৃণা আর বিদ্বেষ তৈরি হয়।

  • ৩. “হান্নানা” হলো সেই নারী যে তার পূর্বের স্বামী বা প্রেমিকের প্রতি আসক্ত থাকে।

অর্থাৎ তার বর্তমান স্বামীর প্রতি তার যেমন আকাঙ্ক্ষা ভালোবাসা, তার থেকে পূর্বের স্বামী অথবা প্রেমিকের প্রতি আসক্তি কাজ করে।

স্বামী থাকা অবস্থায় পূর্বের প্রেমিকের সাথে যোগাযোগ কথাবার্তা বলে থাকে। এমন নারী সংসারের জন্য হুমকিস্বরূপ! তাই বিবাহ করার সময় ভাল করে খোঁজখবর নিতে হয়।

  • ৪. “হাদ্দাকা” হলো সেই নারী, যে কোনো কিছুর উপর থেকেই লোভ লালসা সামলাতে পারে না। 

 অর্থাৎ সব কিছুই পেতে চায়, এবং স্বামীকে তা ক্রয়ের জন্যে নিয়মিত চাপ প্রয়োগ করে। ওটা কিনে দাও, সেটা কিনে দাও, প্রয়োজনে-অপ্রয়োজনে শুধুই অপচয় করে। এমন নারীর কারনে সংসারে বরকত হয় না। ধন সম্পদ ,রোজ ইনকামে সফলতা পাওয়া যায় না।

  • ৫. “বাররাকা” হলো সেই নারী যে সারাদিন কেবল রূপচর্চা নিয়ে মেতে থাকে। 

এই শব্দের আরো  একটি অর্থ হলো, যে নারী খাওয়ার টেবিলে বসে রাগ করে চলে যায়। এবং পরে একা একা খায়। 

  • ৬. “শাদ্দাকা” হলো সেই নারী যে সবসময় বকবক করে,ঝগড়া করে।

এরা স্বামীর সাথে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র বিষয় নিয়ে ঝগড়ায় মেতে ওঠে।

আপনি বিয়ের ক্ষেত্রে সর্বদা দ্বীনদারীকে প্রাধান্য দিন। এতে করে আপনি দুনিয়া ও আখিরাতে কল্যাণ পাবেন। সংসার প্রেম-ভালোবাসায় ভরে উঠবে।

হে আল্লাহ! তুমি আমাদেরকে দ্বীনদার সহধর্মিনী  ও নেক

সন্তান দান করুন।

হে আল্লাহ আমাদের সকল বোনদেরকে দ্বীনদার স্বামী ও নেককার সন্তান দান করুণ।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published.